30 C
Guwahati
Tuesday, September 27, 2022
More

    দুই কাগজ কল সহ গোটা এইচপিসি বিক্রি করছে সরকার, নিলামে দাম ১১৩৯ কোটি

    গুয়াহাটি, জুনঃ সব জল্পনার অবসান। বন্ধ পড়ে থাকা অসমের কাছাড় ও নগাঁও কাগজ কল ফের চালু করার সরকারি প্রতিশ্রুতি ইতিহাসের পাতায় চাপা পড়ে থাকবে। কারণ শুধু দুটি কাগজ কলই নয়, গোটা হিন্দুস্তান পেপার কর্পোরেশন বা এইচপিসি-ই বিক্রি করে দিচ্ছে কেন্দ্র সরকার। ১ জুন এ সংক্রান্ত ই-নিলামের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হয়েছে। মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১১৩৯ কোটি টাকা। নিলামে অংশ নেওয়ার জন্য আবেদনের সঙ্গে দিতে হবে ১ কোটি। আগামী ৩০ জুন এই নিলাম ডাকা হবে।

    মঙ্গলবার পেপার মিল দুটি সহ এইচপিসি-র সম্পূর্ণ সম্পত্তি বিক্রির জন্যে নিলামের আনুষ্ঠিক নোটিশ জারি করা হয়ছে।নোটিশ দিয়েছেন পেপার মিলের লিকুইডেটর কুলদীপ বার্মা। ২০১৯ সালের ২মে এবং ১৪ মে নয়াদিল্লির ন্যাশনাল কোম্পানি ল ট্রাইব্যুনাল (এনসিএলটি) এর রায়ের ভিত্তিতে লিকুইডেটর এই পদক্ষেপ নিয়েছেন। ৩০ জুন সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত এই নিলাম চলবে।

    ই-নিলামের বিজ্ঞপ্তি।

    এনসিএলটি রাজ্যের দুটি কাগজ কলকে বর্জ্য সম্পত্তি হিসেবে নিলাম করার চূড়ান্ত নির্দেশ দিয়েছে । কেন্দ্ৰীয় সরকার এবং রাজ্য সরকার কোনও পক্ষই কাছাড় ও নগাঁও কাগজ কল পুনরুজ্জীবিত করতে এগিয়ে না আসায় এনসিএলটি এই চূড়ান্ত রায়দানে একরকম বাধ্য হয়ে পড়ে। কাছাড় এবং নগাঁও কাগজ কলের মৃত্যু অথবা নিলামিকরণ হলে কলগুলির সঙ্গে প্ৰত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত প্ৰায় দুই লক্ষ মানুষের জীবন সম্পূর্ণভাবে বিপন্ন হবে। তাছাড়া কলগুলিতে ভবিষ্যতে কর্মী নিয়োগের পথ চিরতরে রুদ্ধ হয়ে যাবে। কলগুলি ধ্বংস হয়ে গেলে এই অঞ্চলের সামাজিক ও আর্থিক ক্ষেত্ৰেও তার বিরূপ প্ৰভাব পড়বে।

    অন্যদিকে, কর্মচারীদের প্রাপ্য টাকাগুলোও না দেওয়ার বিষয় যথেষ্ট বিস্ময় প্রকাশ করা হয়েছে। প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনোয়াল অসম সরকারের পক্ষ থেকে পেপার মিলের লিকুইডেটর কুলদীপ বার্মাকে চিঠি দিয়ে নিলাম পিছিয়ে দেবার জন্য সময় চেয়েছিলেন।  কাছাড় ও নগাঁও কাগজ কল পুনরুজ্জীবিত করবেন ও কর্মীদের সমস্ত বকেয়া মিটিয়ে দেবেন বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। ওই  প্রতিশ্রুতিই সার, এরপর বছর গড়িয়ে গেছে কাগজ কল পুনরুজ্জীবিত করার কোনও উদ্যোগ নেয়নি রাজ্য সরকার । এমনকি, কাগজ কলের সদস্যদের তাঁদের বাড়ি ত্যাগ করতে হবে না বলে আশ্বাস দিলেও এই নির্দেশের বিরুদ্ধে রাজ্য সরকার আইনের সামনেও যায়নি। ফলে মৃত্যুর মিছিল লম্বা হযছে । এ পর্যন্ত কাগজ কলের ৮৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। কলগুলির কর্মীরা গত ৫৪ মাস ধরে বেতন পাননি। তাদের গ্ৰ্যাচুয়িটি, পেনশন সবকিছুই অনির্দিষ্টকালের জন্য ঝুলে গেল।

    আরো দেখুন : করোনা আবহেও চলবে সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্পের কাজ, বেনজির রায় দিল্লি হাইকোর্টের

    Published:

    Follow TIME8.IN on TWITTER, INSTAGRAM, FACEBOOK and on YOUTUBE to stay in the know with what’s happening in the world around you – in real time

    First published

    ট্ৰেণ্ডিং