28 C
Guwahati
Saturday, November 26, 2022
More

    রাজ্যে দুর্গাপুজো হবে কঠোর কোভিড বিধি মেনেই, বিধি জারি করে ঘোষণা হিমন্তর

    গুয়াহাটি, ১৩ অক্টোবর : এবারের দুর্গাপুজোয় আনন্দ হলেও উৎসব নেই। কঠোর কোভিড বিধি মেনেই হবে পুজো। রাজ্যবাসীকে করোনার হামলা থেকে সুরক্ষিত রাখতে পুজো উপলক্ষ্যে বেশকিছু বিধি ঘোষণা করেছেন রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী হিমন্তবিশ্ব শর্মা। মঙ্গলবার জনতা ভবনে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে দুর্গাপুজোর নিয়মনীতি ঘোষণা করেছেন তিনি। স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, শারদোৎসব পালনে কোনও নিষেধাজ্ঞা জারি করেনি রাজ্য। তবে দুর্গাপুজোকে কেন্দ্র করে অসমে যাতে করোনা ছড়াতে না পারে সে জন্য রাজ্য সরকার পুরোহিত, পুজোর আয়োজক এবং স্বেচ্ছাসেবকদের পঞ্চমীর আগেই কোভিড-১৯ পরীক্ষা বাধ্যতামূলক করেছে।

    ভারত সরকারের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রকের নির্দেশে উৎসবের সময় কোভিড-১৯ সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে সর্বসাধারণের জন্য একটি নির্দেশিকা বা স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিজিওর (এসওপি) জারি করা হয়েছে। সে অনুযায়ী পুজোর আয়োজকদের সংশ্লিষ্ট জেলাশাসক বা মহকুমাশাসকের আগাম অনুমতি নিতে হবে। এছাড়া কন্টেইনমেন্ট জোনে কোনও পুজোর আয়োজন করা যাবে না৷ তবে কন্টেইনমেন্ট জোনে বসবাসকারীরা ব্যক্তিগতভাবে যার যার বাড়িতে দুর্গাপুজো করতে পারবেন৷ মণ্ডপে মূর্তি নিয়ে আসা এবং বিসর্জনের সময় কোনও ধরনের শোভাযাত্রা বা নাচগানে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে৷ এছাড়া মণ্ডপের চারদিক খোলা রাখার পাশাপাশি ছাদ উন্মুক্ত রাখতে হবে৷ এসওপি অনুযায়ী, মণ্ডপের প্রবেশদ্বার থেকে ভিতরে দর্শনার্থীদের দাঁড়ানোর জন্য দু মিটার অর্থাৎ ছয় ফুট দূরত্বের ব্যবধানে স্থান চিহ্নিত করে দিতে হবে৷ পুজোর মণ্ডপ এবং তার চারপাশে এক সঙ্গে ৫০ জনের বেশি মানুষ সমবেত হতে পারবেন না বলে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখা, মাস্ক পরিধান ইত্যাদি নিয়ম মেনে চলা ছাড়াও সিসি ক্যামেরার মাধ্যমে নজরদারি রাখা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে৷

    মন্ত্রী হিমন্তবিশ্ব জানান, পারস্পরিক দূরত্ব বজায় রাখতে অঞ্জলি দেওয়ার সময় কিংবা গোটা পুজো প্রক্রিয়ায় পুরোহিতদের মন্ত্রপাঠ করতে হবে মাইকে, যাতে দূরে দাঁড়িয়ে দর্শনার্থীরা মন্ত্র শুনতে পারেন। ভিড় এড়াতে অঞ্জলি দেওয়ার জন্য ভক্তদের বাড়ি থেকে ফুল নিয়ে আসতে হবে৷ ১০ থেকে ১৫ জনের বেশি ভক্তকে একত্রে অঞ্জলি দিতে দেওয়া যাবে না৷ পুজোর আয়োজকরা ১০ থেকে ১৫ জনের দল করে সুসংগঠিতভাবে সিঁদুর খেলার আয়োজন করবেন৷ ক্লাব কিংবা পুজো কমিটিগুলি মণ্ডপের কাছে কোনও মেলার আয়োজন করতে পারবে না বলেও জানান তিনি৷ এছাড়া পুজোর কয়দিন রাত দশটার পর মণ্ডপ অবশ্যই বন্ধ করে দিতে হবে।

    স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, প্ৰতিমা বিসৰ্জনের স্থান সংশ্লিষ্ট জেলা বা মহকুমাশাসক নির্ধারণ করে দেবেন। একদিনে নয়, দুই থেকে তিন দিন বিসর্জনের ব্যবস্থা করবে প্রশাসন। এছাড়া বিসর্জনের পর দ্বিতীয়বার কোভিড টেস্টও বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এছাড়া পুজোর দিনগুলিতে মটর বাইকে একসঙ্গে দুজন পুরুষ আরোহণ করতে পারবেন না।

    Published:

    Follow TIME8.IN on TWITTER, INSTAGRAM, FACEBOOK and on YOUTUBE to stay in the know with what’s happening in the world around you – in real time

    First published

    ট্ৰেণ্ডিং