19 C
Guwahati
Sunday, November 27, 2022
More

    মিজোরাম সীমান্তের পিলার খুঁজতে গিয়ে ব্যর্থ হয়ে ফিরলেন ডিসি-ডিএফও, শিশুর মৃতদেহ উদ্ধার

    শিলচর, নভেম্বর : আসাম-মিজোরাম সীমান্তে রেংটি পাহাড়ের ঘন জঙ্গলে মিজো দখলদারি ও  আইটলাংগে সীমানা প্রত্যক্ষ করলেন কাছাড়ের জেলাশাসক কীর্তি জল্লি ও কাছাড়ের ডিএফও সানিদেও চৌধুরী। মঙ্গলবার জেলাশাসক হাওয়াইথাং-এর রেঞ্জ অফিসার দিব্যজ্যোতি  দেউরি সহ  অন্যান্য  আধিকারিক ও ব্যাটেলিয়ানদের নিয়ে পায়ে হেঁটে  ভাগাবাজার গ্রাম পঞ্চায়েতের অন্তর্গত লোকনাথপুর জয়ধনপুর সীমান্তবর্তী স্কুলের পাশ দিয়ে রেংটি পাহাড়ের জঙ্গলে উঠেন। প্রায় সাড়ে ২৫ কিলোমিটার পায়ে হেঁটে পৌঁছান আইটলাংগে। সেখানে আসাম-মিজোরাম সীমান্তের সীমা নির্ধারণকারী একটি পিলার ছিল, সেই পিলারটি তাঁরা খুঁজে পাননি।স্থানীয়দের কাছ থেকে তাঁরা জানতে পারেন, ২০১৯ ইংরেজির শুরুর দিকে মিজোরা সেই পিলারটি তুলে নিয়ে গেছে। উল্লেখ্য, ২০০৫ ইংরেজিতে মিজোরা পিলারটি আরও একবার তুলে ফেলেছিল। তারা সেখানে গিয়ে প্রত্যক্ষ করেন ধলাইখাল অঞ্চলেও বেশ কিছু জায়গা মিজোরাম তাদের দখলে নিয়ে রেখেছে। এদিন কোনও মিজো লোকের দেখা না মিললেও তাদের আনাগোনা ও দখলদারির বিষয়ে স্থানীয় মানুষ তাদের অবগত করেছেন। সেখান থেকে ফেরার পথে সীমান্তের ধলাইখাল এলপি স্কুল ও জামিরখাল এলপি স্কুল পরিদর্শন করেন। স্কুল দুটি যে কোনও সময় দুষ্কৃতীর বোমা হামলার শিকার হতে পারে বলে সন্দেহ রয়েছে। স্কুল দুটির নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে নিরাপত্তা বাহিনী মোতায়েন করা হবে বলে এদিন  জেলাশাসক জানিয়েছেন। প্রায় ১১ ঘণ্টা জঙ্গলে ঘুরে  বিকাল সাড়ে পাঁচটায়  জয়ধনপুর তবতকোড় হয়ে সমতলে ফিরেন তাঁরা। 

    জেলাশাসক ও ডিএফও যখন আইটলাংগের জঙ্গলে অবস্থান করছেন সেই সময়  আপার ফাইনোমের যে স্কুলটি বোমা মেরে  উড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল সেই স্কুলের পাশে মিজো পুলিশ, আইআরপি ব্যাটেলিয়ান সহ প্রায় শতাধিক মিজো জনতা জড়ো হয় একটি কাঁচা গৃহ নির্মাণ করতে শুরু করেন। আসামের জমিতে মিজোরামের গৃহনির্মাণের খবরে ধলাই থানার ওসি সাহাব উদ্দিন বড়ভূঁইয়া, সোনাই সার্কেল ম্যাজিস্ট্রেট সঞ্জীব নাথকে সঙ্গে নিয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে মিজোদের গৃহ নির্মাণে বাধা দেন। প্রশাসনের বাধার মুখে সে সময়ে নির্মাণ  কাজ স্থগিত রাখতে বাধ্য হয় মিজোরা। একই সময়ে সীমান্তের প্রায় ৩ কিলোমিটার ভিতরে  ধলাখালের কালাখাল নালার ওপর পাকা সেতু নির্মাণের জন্য জরিপ করছিল মিজোরাম। সেখানেও বাধা দেওয়া হয়। প্রশাসনিক আধিকারিকদের বাধার মুখে সে সময়ে মিজোরা চলে গেলেও রাতে মিজোরামের তরফে  সেই জায়গায় বিএসএফ ও আইআরপি বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে বলে জানা গেছে। এদিকে, গত ১১ নভেম্বর অটোরিকশা থেকে হারিয়ে যাওয়া আড়াই বছরের শিশু সিনতারার  সাত দিনের মাথায় মৃতদেহ উদ্ধার হয়েছে আসাম-মিজোরাম সীমান্তের তুইকোর নালা থেকে। গত সাতদিন থেকে বিভিন্ন দলে বিভক্ত হয়ে সীমান্তে শিশুটিকে খোঁজা হচ্ছিল। এদিন একটি দল বেলা একটার দিকে নালার জলে শিশুর মৃতদেহ ভাসতে দেখেন, শিশুটি যে জায়গা থেকে হারিয়েছিল সেখান থেকে মৃতদেহ উদ্ধার হওয়া জায়গার দূরত্ব পাহাড়ি রাস্তায় প্রায় ৫ কিলোমিটার। একটি আড়াই বছরের শিশু কিভাবে ৫ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে তুইকোর পর্যন্ত পৌঁছালো তা নিয়ে রহস্য দানা বাঁধে। মিজোরামের ভাইরেংটি পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য  হাসপাতালে পাঠিয়েছে।

    Published:

    Follow TIME8.IN on TWITTER, INSTAGRAM, FACEBOOK and on YOUTUBE to stay in the know with what’s happening in the world around you – in real time

    First published

    ট্ৰেণ্ডিং