21 C
Guwahati
Friday, January 14, 2022
More

    বিছানার অভাবে ভুগছেন রোগীরা, শিলচর সিভিলে পড়ে আছে আইসিইউ ইউনিটের যন্ত্রাংশ

    শিলচর, ৫ সেপ্টেম্বর : বরাক উপত্যকায় করোনার চিকিৎসার ক্ষেত্রে ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট (আইসিইউ) শয্যার অভাবে রোগীদের যেখানে ভুগতে হচ্ছে, সেখানে শিলচর এসএম দেব সিভিল হাসপাতালে পড়ে রয়েছে এ ধরনের দশটি শয্যার সব যন্ত্রপাতি। এসব সংস্থাপিত না করেই ফেলে রাখা হয়েছে এমনিতেই। আশ্চর্যজনকভাবে স্বাস্থ্য বিভাগের প্রতিমন্ত্রী পীযুষ হাজরিকার সাম্প্রতিক বরাক উপত্যকা সফরের সময়ও এনিয়ে উচ্চারিত হয়নি কোনও কথা। দশ ইউনিট আইসিইউ শয্যার যন্ত্রাংশ এভাবে পড়ে থাকা নিয়ে  বিভিন্ন মহলে শুরু হয়েছে শোরগোল।

    এআইইউডিএফ-এর কাছাড় জেলা কমিটির সভাপতি সামিনুল হক বড়ভূইয়া শীঘ্র  সিভিল হাসপাতালে দশটি বেড বসানো নিয়ে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন স্বাস্থ্য মিশন সঞ্চালক ডাঃ এস লক্ষণন ও জেলাশাসক কীর্তি জল্লির।জানা গেছে, গত ২৩ জুলাই জাতীয় স্বাস্থ্য মিশন সঞ্চালক ডাঃ এস লক্ষণন কাছাড়ের স্বাস্থ্য বিভাগের যুগ্ন সঞ্চালকের কাছে এক চিঠি (এএইচএম/১৮০১৭/৭/২০২০/প্রোকিউরমেন্ট-এনএইচএন/৩৫৯) লিখে দশ ইউনিট আইসিইউ শয্যার যন্ত্রপাতি মঞ্জুরির কথা জানান। কিছুদিন পরই এসে পৌছয় এসব যন্ত্রপাতি। কিন্তু পৌঁছানোর পর আইসিইউ শয্যা চালু করার কোনও উদ্যোগ পরিলক্ষিত হচ্ছে না। প্যাকেটবন্দি হয়ে পড়ে রয়েছে সব যন্ত্রাংশ।

    এআইইউডিএফ জেলা সভাপতি সামিনুল জানিয়েছেন, এ নিয়ে তিনি জেলাশাসকের সঙ্গে কথা বললে তাকে জানানো হয়েছে, সিভিল হাসপাতালের যে কক্ষে এসব বসানো হবে সেই কক্ষে চিকিৎসাধীন রয়েছেন করোনা রোগীরা। এদের রিলিজ করার পরই বসানো হবে আইসিইউ শয্যা। একথা জানিয়ে তিনি বলেন, এমন অজুহাত মেনে নেওয়া যায় না। মঞ্জুরীকৃত দশটি আইসিইউ বেড শীঘ্রই বসানো জরুরি। তিনি আরও জানান, এ নিয়ে জেলাশাসক ছাড়াও কথা বলেছেন মিশন সঞ্চালক ডাঃ এস লক্ষ্মণনের সঙ্গেও।লক্ষণ অবশ্য জানিয়েছেন, শীঘ্রই বেড বসানোর জন্য গুয়াহাটি থেকে পাঠানো হচ্ছে বিশেষজ্ঞ টিম। জেলার স্বাস্থ্য বিভাগের যুগ্ম সঞ্চালক ডাঃ সুদীপজ্যোতি দাস বলেন, সিভিলের নির্ধারিত কক্ষে চিকিৎসাধীন করোনা রোগীর রিলিজ হওয়ার পরই শুরু হবে আইসিইউ-র কাজ।

    Published:

    Follow TIME8.IN on TWITTER, INSTAGRAM, FACEBOOK and on YOUTUBE to stay in the know with what’s happening in the world around you – in real time

    First published

    ট্ৰেণ্ডিং