15 C
Guwahati
Tuesday, January 25, 2022
More

    বালি মাফিয়াদের দাপট, রাতাবাড়িতে চলছে শিংলা নদীর অবৈধ খনন

    দুর্নীতি নিয়ে শূন্য সহনশীল নীতি নেওয়া সরকারের আমলে রাতাবাড়ির বন বিভাগে সংঘটিত হচ্ছে অবাধ দুর্নীতি। রাতাবাড়ি কেন্দ্রের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়ে যাওয়া পাহাড়ি নদী শিংলার বালি বরাক বিখ্যাত । কারণ শিংলা নদীর বালির দানা চিনির মতো এবং তাতে নেই পলি মাটির মিশ্রন। ফলে যে কোন নির্মাণ কাজে শিংলার বালিকে  দেওয়া হয় প্রাধান্য। আর শিংলার বালির এই চাহিদার জন্যই রাতাবাড়িতে গজিয়ে উঠেছে বালি মাফিয়াদের সাম্রাজ্য । এলাকার মোকামছড়া, চামটিলা, ফানাইরবন্দ, নিভিয়া, চেরাগী ইত্যাদি স্থানে শিংলা নদীর বুকে মেশিন বসিয়ে প্রকাশ্য দিবালোকে চলছে অবৈধ নদী খনন। আনিপুর জামুয়াং সড়কের পাশে যত্রতত্র  নদী হতে অবৈধ ভাবে বালি তুলে স্তূপাকারে মজুত করা হচ্ছে । আর প্রতিদিন শ শ ট্রাক ভর্তি করে ঐ বালি পাচার হচ্ছে উপত্যকার সর্বত্র । এমনকি চেরাগি ফরেস্ট রেঞ্জ অফিস থেকে মাত্র ১ কিঃ মিঃ দূরে বিরজাপুরে পূর্ত সড়কের পাশে নদীর বুকে পাম্প মেশিন বসিয়ে অবাধে তোলা হচ্ছে বালি। এতে একদিকে মার খাচ্ছে সরকারি রাজস্ব অপর দিকে ওই অবৈধ খননের ফলে খরস্রোতা শিংলার বেড়ে গেছে ভাঙন । সেইসাথে শত শত বালি ভর্তি ট্রাকের যাতায়াতে চৌচির হয়ে যাচ্ছে পূর্ত সড়ক। শুধু তাই নয়, গ্রামোন্নয়ন বিভাগের এমজিএনরেগা প্রকল্পে  জবকার্ড শ্রমিকদের দ্বারা মাটি ভরাটের বদলে মেশিন দিয়ে  অবৈধ ভাবে নদী খনন করে চলছে মাটি ভরাটের পরিবর্তে বালি ভরাটের কাজ। দুল্লভছড়া ফরেস্ট বিট অফিসের পাশে ভেটারবন্দ জি পি-র এনরেগার কাজে অবৈধ নদী খননের মাধ্যমে হরেকৃষ্ণ মধ্যবঙ্গ বিদ্যালয়ে মাঠে অবাধে চলছে বালি ভরাটের কাজ। দুর্নীতিবাজদের কাছে শিংলা নদী এখন সোনার ডিম পাড়া হাঁসের মতো । যে যেভাবেই পারছে লুণ্ঠন করছে শিংলার প্রাকৃতিক সম্পদ। আর চোখে কালো চশমা পরে দেখেও না দেখার ভান করে এড়িয়ে যাচ্ছেন রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে থাকা বন আধিকারিকরা। সচেতন মহলের অভিযোগ, ম্যানেজ সিস্টেমের দৌলতে নীচ থেকে উপর পর্যন্ত সেটিং করে রেখেছে বালি মাফিয়ারা । এমনকি রাজনৈতিক ছত্রছায়াও রয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে । একসময়ের বালি মাফিয়া বর্তমানে জেলার রাজনীতির আঙিনায় প্রভাবশালী নেতা। এতে আরো সুবিধা হয়েছে ঐ সিন্ডিকেটটির বলে অভিযোগ । যার পরিপ্রেক্ষিতে বিগত দিনের সব রেকর্ড ভেঙে পুরো উদ্যমে চলছে শিংলার প্রাকৃতিক সম্পদের লুন্ঠন। ফলে  ঐ অবৈধ নদী খনন বন্ধ করার জন্য জেলার বন আধিকারিক সহ বন মন্ত্রী পরিমল শুক্লবৈদ্যের কাছে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন পরিবেশ প্রেমী সচেতন মহল।

    Published:

    Follow TIME8.IN on TWITTER, INSTAGRAM, FACEBOOK and on YOUTUBE to stay in the know with what’s happening in the world around you – in real time

    First published

    ট্ৰেণ্ডিং