28 C
Guwahati
Tuesday, October 4, 2022
More

    বাংলাদেশের পণ্যবাহী জাহাজ নোঙর করল করিমগঞ্জে, কুশিয়ারায় উড়ছে শঙ্খচিল

    জকিগঞ্জ, ৭ নভেম্বরঃ কুশিয়ারার বুকে এবারে উড়তে শুরু করল স্বপ্নের  শঙ্খচিল।দীর্ঘ অপেক্ষার পর বাংলাদেশ থেকে করিমগঞ্জে এসে পৌছাল পণ্যবাহী জাহাজ। কুশিয়ারায় লালসবুজ ও গেরুয়া পতাকা উড়িয়ে জকিগঞ্জ  ঘাটে এসে নোঙর করে জাহাজটি। বাংলাদেশের পাইলট হাউসের উল্টো দিকে কালের সাক্ষী হয়ে  করিমগঞ্জের জাহাজঘাট মাথা উচু করে দাড়িয়ে আছে।  নদীর তীরে পাইলট  হাউসের সিড়িতে বসে থাকা প্রাক্তন সেনাসদস্য মো. আবদুর রহিম বাবুল স্মৃতির পথ ধরে এগিয়ে যান। বলেন, এপার ওপারে কতই না আসা যাওয়া ছিল।  স্বজনদের অনেকেরই বসবাস করিমগঞ্জ-শিলচরে। দুই বাংলার ব্যবসা-বাণিজ্যও পুরনো। দুদেশের জল পথ চালু হওয়ায় আবারও সেই  সুযোগ এনে দিয়েছে।  

    ৮৫ বছরের আবদুল গফুর আবেগ-আপ্লুত। পণ্যবাহী জাহাজ দেখে ফোকলা মুখে হেসে গর্বের উচ্চারণ করেন, যৌবনে ভারতবর্ষ দেখেছেন। সহপাঠীদের নিয়ে  কয়লাবোঝাই জাহাজ থেকে  দূরন্ত কুশিয়ারার  জলে ঝাপিয়ে পড়েছেন।  সেই দিন এখন অতীত। কুশিয়ারা বুড়িয়ে গেছে।  তার মতোই ভাটা যৌবন নিয়ে ধীর গতিতে বয়ে চলছে।  তবে,  তাকে গতিশীল করতে হাত লাগিয়েছে বাংলাদেশ-ভারত। আশুগঞ্জ থেকে করিমগঞ্জের কুশিয়ারা নদী খননের কাজ চলছে।  খনন কাজ সম্পন্ন হলে বারোমাস পণ্যপরিবাহিত হবে। 

    শুক্রবার দেড়শ’ মেট্রিক টন সিমেন্ট নিয়ে আসা জাহাজটির দ্বার উদঘাটনের কথা ছিল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির। ৮ নভেম্বর  অসমে আরও কয়েকটি অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যোগদানের কথা ছিল। জানা গেছে এদিন জরুরি কাজের কারণে  যোগদান  করতে পারেননি প্রধানমন্ত্রী। জাহাজের সরকারি পাইলট আইয়ুব খান জানান, নদীর কোনও কোনও স্থানে প্রবল স্রোত। তাতে পণ্যবাহী জাহাজ চলাচলে কিছুটা বিঘ্ন ঘটেছে। তিনি ৩টি জাহাজের নেতৃত্বে রয়েছেন।  বাকী দুটো জাহাজে পাথর যাবে। তাছাড়া আরও দুটো জাহাজ পথে রয়েছে।  ওগুলোতে অন্যান্য পণ্য পরিবহন করা হবে।   সম্ভাবনাময় এই জলপথটি বারো মাস সচল রাখতে আঁটঘাট বেধে নেমেছে সরকার।  

    জকিগঞ্জে রয়েছে চমৎকার দোতলা একটি পাইলট হাউস। তাতে দু’জন স্টাফও রয়েছেন। এই জলপথটি খননে ভারতের তরফে আশি শতাংশ এবং বাংলাদেশের কুড়ি শতাংশ অর্থ ব্যয় করা হচ্ছে।  আগামীতে  রাজশাহীর গোদাগাড়ী ও পশ্চিমবঙ্গে ধূনিয়ান ময়া জলপথটি দ্রুত চালু করতে উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ সরকার।  অসমের করিমগঞ্জ, বদরপুর এবং সুতারকান্দি দিয়ে উত্তরপূর্ব ভারতের বিভিন্ন স্থানে পণ্য পরিবহনে বাংলাদেশের শেওলায় স্থলবন্দর অবকাঠামো নির্মাণ করবে সরকার। পাশাপাশি অসমের ধুবড়ি,  শিলঘাট ও পান্ডু জলপথে ১০টি জাহাজ চলাচল করছে।

    Published:

    Follow TIME8.IN on TWITTER, INSTAGRAM, FACEBOOK and on YOUTUBE to stay in the know with what’s happening in the world around you – in real time

    First published

    ট্ৰেণ্ডিং