34 C
Guwahati
Friday, September 30, 2022
More

    বন ও পরিবেশ রক্ষায় অসমবাসীর ভূমিকার প্রশংসা মোদির

    নয়াদিল্লি, ১ মার্চ : বনজঙ্গল, জল এবং প্রাকৃতিক পরিবেশ সংরক্ষণে অসমবাসীর ভূমিকার ভূয়সী প্রশংসা করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। রবিবার মন কি বাত অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, কাজিরাঙ্গা ন্যাশনাল পার্ক অ্যান্ড টাইগার রিজার্ভ অথরিটি  বার্ষিক জলকুক্কুট গণনা করে আসছে। এই পক্ষীসুমারিতে জলপাখির সংখ্যা এবং তাদের পছন্দসই বাসস্থান সম্পর্কেও জানা যায়। 

    প্রধানমন্ত্রী  উল্লেখ করেন, মাত্র দুই-তিন সপ্তাহ আগেই এরকম একটা সার্ভে হয়েছে। দেখা গিয়েছে, এবার জলকুক্কুটের সংখ্যা গত বছরের তুলনায় ১৭৫ শতাংশ বৃদ্ধি  পেয়েছে। এই পক্ষীসুমারিতে কাজিরাঙ্গা ন্যাশনাল পার্কে প্রায় ১১২টি প্রজাতির পাখি দেখা গিয়েছে। এর মধ্যে ৫৮টি প্রজাতি ইউরোপ, মধ্য এশিয়া, পূর্ব এশিয়া সহ দুনিয়ার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা পরিযায়ী পাখি। কারণ হচ্ছে, এখানে ভালো জল সংরক্ষণের পাশাপাশি মানুষের হস্তক্ষেপ অনেক কম। তবে এটাও ঠিক, কিছুকিছু ক্ষেত্রে মানুষের ইতিবাচক হস্তক্ষেপও জরুরি হয়ে ওঠে। 

    অসমের যাদব পায়েং-এর নামোল্লেখ করে তিনি বলেন, তাঁর সম্পর্কে  হয়তো অনেকেই জানেন। নিজের কাজের জন্য তিনি পদ্মশ্রী পুরস্কারও পেয়েছেন। যাদব পায়েং সেই ব্যক্তি যিনি মাজুলি দ্বীপে প্রায় ৩০০ হেক্টর জমিতে বৃক্ষরোপণ করেছেন। তিনি বন সংরক্ষণের কাজ করেন এবং বৃক্ষরোপণ,  জৈব-বৈচিত্র্য সংরক্ষণেও সবাইকে অনুপ্রাণিত করেন। তিনি এ-ও উল্লেখ করেন, অসমের মন্দিরগুলিও পরিবেশ সুরক্ষার ক্ষেত্রে নিজেদের ভূমিকা পালন করে চলেছে। প্রতিটি মন্দিরের পাশে রয়েছে পুকুর। এ প্রসঙ্গে হাজোর হয়গ্রীব মাধব মন্দির, শোনিতপুরের নাগশংকর মন্দির এবং  গুয়াহাটির উগ্রতারা মন্দিরের কথা বিশেষভাবে উল্লেখ করেন মোদি। তিনি বলেন, এ গুলোতে বেশ কিছু বিলুপ্তপ্রায় কচ্ছপের প্রজাতি সংরক্ষিত  আছে। অসমে কচ্ছপের সবচেয়ে বেশি প্রজাতি পাওয়া যায়। মন্দিরের এই পুকুরগুলি কচ্ছপের সংরক্ষণ, প্রজনন এবং  প্রশিক্ষণের জন্য এক অসাধারণ স্থান হতে পারে।

    আরো দেখুন : দু’দিনের ভ্ৰমণসূচি নিয়ে অসমে উপস্থিত প্ৰিয়ংকা গান্ধী

    Published:

    Follow TIME8.IN on TWITTER, INSTAGRAM, FACEBOOK and on YOUTUBE to stay in the know with what’s happening in the world around you – in real time

    First published

    ট্ৰেণ্ডিং