31 C
Guwahati
Tuesday, October 4, 2022
More

    বঙ্গবন্ধুর আস্থাভাজনরাই বিশ্বাসঘাতকতা করেছে, জন্মশত বার্ষিকীতে হাসিনা

    ঢাকাঃ ১৯৭৫ সালে ১৫ আগস্ট বাংলাদেশের জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার মধ্য দিয়ে হত্যাকাণ্ড ও রক্তপাত শুরু হয়। শেখ হাসিনা বলেন, যিনি আমাদের স্বাধীনতা এনে দিয়েছিলেন, একটি জাতি হিসেবে আত্মমর্যাদার সুযোগ করে দিয়েছিলেন, এ দেশের মানুষের ভাগ্য উন্নয়নে কাজ করছিলেন, সেই জাতির পিতাকেই কিনা খুনিরা হত্যা করল। সেই সঙ্গে স্বাধীনতার চেতনাকে ধ্বংস করাই ছিল খুনীদের মূল উদ্দেশ্য। বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের পর কিছু আওয়ামি লিগ নেতার ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম মৃত্যুবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে রবিবার বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী উদযাপন কমিটি আয়োজিত আলোচনাসভায় ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে এসব কথা বলেন শেখ হাসিনা। এসময় শেখ হাসিনা ৭৫’র  ১৫ আগস্ট শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর হত্যা প্রক্রিয়ার শুরুতে দলের ভেতরেই চক্রান্ত শুরু হয় এবং  পরিকল্পিত ও উদ্দেশ্যমূলক সমালোচনার মাধ্যমে হত্যার পরিবেশ সৃষ্টি করা হয়েছিল। পাকিস্তানিরা জাতির পিতাকে হত্যা করতে পারেনি। কিন্তু জাতির পিতার যাদের প্রতি বিশ্বাস ছিল, ভালোবাসা ছিল, তারাই বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে বিশ্বাসঘাতকতা করল। আলোচনাসভায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতার চেতনাকে মুছে ফেলতেই সেদিন পরাজিত শক্তি ১৫ আগষ্ট এর মতো ঘৃণ্য হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছিল। ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার উদ্দেশ্যও ছিল বঙ্গবন্ধু পরিবারকে নিশ্চিহ্ন করা। প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার মাধ্যমেও স্বাধীনতার চেতনা ধুলিসাৎ করতে চেয়েছিল বিএনপি-জামায়াত চক্র। শেখ হাসিনা বলেন, মুক্তিযুদ্ধে বিরোধিতা করা গণহত্যাকারী, নারী ধর্ষণকারীদের এমপি, মন্ত্রী বানিয়ে ক্ষমতায় বসিয়েছিলেন জিয়া। তিনি জাতির জনকের হত্যাকারীদের পুরস্কৃত করেন। জিয়ার মতোই স্বাধীনতাবিরোধী ও জাতির পিতার হত্যাকারীদের মদত দিয়েছেন বেগম জিয়া।

    Published:

    Follow TIME8.IN on TWITTER, INSTAGRAM, FACEBOOK and on YOUTUBE to stay in the know with what’s happening in the world around you – in real time

    First published

    ট্ৰেণ্ডিং