18 C
Guwahati
Friday, November 25, 2022
More

    ফের করোনা বিধিভঙ্গ, শিলচর বালিকা বিদ্যালয়ের দুই শিক্ষিকাকে বাঁচাতে সক্রিয় দালালচক্র

    শিলচর, ৩০ সেপ্টেম্বর: কোভিড প্রটোকল ভঙ্গ করে স্কুলে গিয়েছিলেন শিলচর সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের দুই শিক্ষিকা পিংকিমনি ডেকা  ও মীনাক্ষী মেচ। যার দরুন “আইসোলেশন”-এ যেতে হয়েছে অধ্যক্ষা সহ ১৫ ছাত্রীসহ অন্যান্যদের। ঘটনাকে ঘিরে স্কুলে সৃষ্টি হয়েছে তীব্র আতঙ্কের। কিন্তু রহস্যজনক কারণে দুই শিক্ষিকার বিরুদ্ধে এ পর্যন্ত কোনও ব্যবস্থাই নেওয়া হয়নি। এ নিয়ে সৃষ্টি হয়েছে তীব্র প্রতিক্রিয়ার। ২৪ সেপ্টেম্বর গুয়াহাটি থেকে বিমানে আসার পর পিংকিমনি ডেকা ও মীনাক্ষী মেচ ওইদিনই স্কুলে গিয়ে কাজে যোগ দেন। পরদিনও তারা যথারীতি স্কুলে যান, আর ওই দিনই দুজনের কোভিড টেস্টের রেজাল্ট আসে পজিটিভ। দুই শিক্ষিকার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের আর্জি জানিয়ে গতকাল জেলাশাসককে চিঠি দিয়েছেন হায়ার সেকেন্ডারি শিক্ষক সংস্থার কাছাড় জেলা কমিটির কর্মকর্তা কৃষ্ণেন্দু রায়। তিনি অবশ্যই চিঠি লিখেছেন নরসিং হায়ার সেকেন্ডারি স্কুলের শিক্ষক তথা প্রাক্তনী হিসেবে।

    জানা গেছে, দুই শিক্ষিকা ২৪ সেপ্টেম্বর কুম্ভীরগ্রাম বিমানবন্দরে অবতরণের পর তাদের রেপিড এন্টিজেন টেস্ট করা হয়, এতে রেজাল্ট আসে নেগেটিভ। যদিও আরটিপিসিআর টেস্টের রেজাল্ট না আসা পর্যন্ত তাদের হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে বলা হয়েছিল, সঙ্গে দুজনের হাতে মারা হয় কোয়ারেন্টিন স্টাম্পও। কিন্তু দুই শিক্ষিকা এসবের পরোয়া না করে ওইদিনই স্কুলে গিয়ে কাজে যোগ দেন। পরদিন তারা স্কুলে ক্লাস নিতে যাওয়ার পর খবর আসে দুজনের আরটিপিসিআর টেস্টের রেজাল্ট পজিটিভ। এরপর তাদের সংস্পর্শে আসায় আইসোলেশনে যেতে হয় অধ্যক্ষা সোমা শ্যাম, নবম শ্রেণির ১৫ জন ছাত্রী সহ আরও কয়েকজনকে।ঘটনার কথা ছড়িয়ে পড়ার পর দুই শিক্ষিকার দায়িত্বজ্ঞানহীন আচরণের দরুন তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে জোর আওয়াজ ওঠে। যদিও এর পাশাপাশি এক দালাল চক্র আবার তাদের বাঁচাতে সক্রিয় হয়ে উঠেছে বলে খবর। খবরের সূত্র অনুযায়ী, ওই দালাল চক্র শিক্ষা বিভাগ সহ সংশ্লিষ্ট অন্যান্য আধিকারিকদের ম্যানেজ করার জন্য উঠে পড়ে লেগেছে।

    দুই শিক্ষিকার দায়িত্বজ্ঞানহীন আচরণকে ঘিরে বর্তমানে চর্চায় চলে আসছে নরসিং স্কুলের প্রাক্তনী নীলোৎপল চৌধুরীর স্মরণসভার প্রসঙ্গও। নরসিং স্কুলে নীলোৎপল চৌধুরীর স্মরণসভায় কোভিড প্রটোকল মানা হয়নি বলে শোকজ করা হয় অধ্যক্ষ রতন পালকে। পরবর্তীতে তার কাছে পাঠানো হয় কড়া সতর্কবাণী সম্বলিত চিঠি। কিন্তু পিংকিমনি ডেকা ও মীনাক্ষী মেচের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার ক্ষেত্রে চোখে পড়ছে না কোনও উদ্যোগই। এ নিয়ে অতিরিক্ত জেলাশাসক রাজীব রায়কে জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, দুই শিক্ষিকার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে স্কুল পরিদর্শককে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তিনি আরও বলেন, দুই শিক্ষিকার হোম কোয়ারেন্টিনে থাকাটা অবশ্যই উচিত ছিল। নিয়ম ভঙ্গ করার দরুন দুজনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে অবশ্যই। অতিরিক্ত জেলাশাসক সঙ্গে এও বলেন, দুই শিক্ষিকার হাতে “কোয়ারেন্টিন স্টাম্প” দেখার পর অধ্যক্ষার উচিত ছিল তাদের স্কুলে ঢুকতে না দেওয়া।

    এদিকে জেলার স্কুল সমূহের পরিদর্শক সেমিনা ইয়াসমিন আরা রহমান বলেন, শিক্ষা বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত অতিরিক্ত জেলাশাসক তাকে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বললেও সরকারি বালিকা বিদ্যালয় থেকে এখনও দুই শিক্ষিকার বিধি ভঙ্গ করা নিয়ে তাকে রিপোর্ট করা হয়নি। রিপোর্ট পেলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

    Published:

    Follow TIME8.IN on TWITTER, INSTAGRAM, FACEBOOK and on YOUTUBE to stay in the know with what’s happening in the world around you – in real time

    First published

    ট্ৰেণ্ডিং