27 C
Guwahati
Monday, October 3, 2022
More

    এবার করোনায় আক্রান্ত হচ্ছে শিশুরা, ডিমা হাসাওয়ে চিকিৎসাধীন ১৫ শিশু

    এবার করোনায় আক্রান্ত হচ্ছে শিশুরা, ডিমা হাসাওয়ে চিকিৎসাধীন ১৫ শিশু

    হাফলং, ২৭ এপ্রিলঃ ডিমা হাসাও জেলায় এবার করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছে শিশুরা। চার থেকে নয় মাসের শিশু করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ডিমা হাসাওয়ে। হাফলং সরকারি হাসপাতালের অধ্যক্ষ ডাঃ কল্পনা কেম্প্রাই জানান, পাহাড়ি জেলাতে এবার শিশুরা ও করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছে। হাফলং সরকারি হাসপাতালে চার মাস থেকে নয় মাস পর্যন্ত চার জন শিশু করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি। তাছাড়া জেলার বিভিন্ন স্থানে এ ধরনের প্রায় ১৫ জন শিশু করোনায় আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

    তিনি আরও জানান, বর্তমানে হাফলং সরকারি হাসপাতালের কোভিড ওয়ার্ডে ৭২ জন করোনা আক্রান্ত রোগী ভর্তি রয়েছেন। রোগীর সংখ্যা ক্রমশ বাড়ছে। তার সঙ্গে জটিল রোগীর সংখ্যাও বাড়ছে। হাফলং সরকারি হাসপাতালে ১১ শয্যাযুক্ত আইসিইউ নির্মাণের কাজ চলছে, তবে কিছু টেকনিক্যাল সমস্যার দরুন তা কর্মক্ষম হতে আরও কিছুটা সময় লাগবে।

    এদিকে করোনার সংক্রমণ থেকে বাঁচতে সবাই কোভিড প্রটোকল ও স্বাস্থ্য বিধি কঠোর ভাবে মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছেন ডাঃ কল্পনা কেম্প্রাই। তিনি বলেন, স্বাস্থ্য বিধি সবাই মেনে চললেই আমরা করোনার বিরুদ্ধে জয়ী হতে সক্ষম হব। এদিকে হাফলং শহরে অত্যাবশ্যকীয় সামগ্রীর দোকান সহ মাছ মাংস ডিমের দোকান ও বেকারী ছাড়া সব ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান হোটেল রেষ্টুরেন্ট বন্ধ রাখার যে নির্দেশ জারি করেছে হাফলং পুর পর্ষদ এনিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে ব্যবসায়ীদের মধ্যে। এধরনের নির্দেশে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা বিপাকে পড়েছেন। তাছাড়া হাফলং পুর পর্ষদ জেলা প্রশাসন বা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কোনও আলোচনা না করে এমন সিদ্ধান্ত গ্রহন করায় ব্যবসায়ীদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। যেখানে রাজ্য সরকারের নির্দেশ অনুযায়ী রাজ্যের সব কয়টি জেলার শহর অঞ্চলে আগামী ৫ জুন পর্যন্ত সকাল ৬ টা থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত সব ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান খোলা থাকবে এবং ১২টা থেকে সকাল ৫ টা পর্যন্ত বলবৎ থাকবে কার্ফু। এই অবস্থায় হাফলং পুর পর্ষদ কিভাবে এধরনের নির্দেশ জারি করেছে এনিয়ে রয়েছে যথেষ্ট বিতর্ক।

    এদিকে শহরের ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়ায় লক ডাউনের ভয়ে হাফলঙে প্রচন্ড ভিড় বেড়ে যায় আর এ ধরনের ভিড় বেড়ে গেলে করোনার সংক্রমণ আরও বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকবে এমনটাই মনে করছেন সচেতন মহল। ডিমা হাসাও জেলায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা মোট ১১২১ জন। এরমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩৩৯ জন রোগী। জেলার সক্রিয় করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৭৫০ জন।

    আরো দেখুন : বার্মিজ সুপারির পর এবার কয়লা সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে অভিযান চিরাং পুলিশের

    Published:

    Follow TIME8.IN on TWITTER, INSTAGRAM, FACEBOOK and on YOUTUBE to stay in the know with what’s happening in the world around you – in real time

    First published

    ট্ৰেণ্ডিং