14.1 C
Guwahati
Thursday, January 27, 2022
More

    এনআরসি প্রকাশের এক বছর পরেও নাগরিকত্ব নিয়ে অনিশ্চয়তা অব্যাহত

    মরিগাঁও জেলার ভূরাগাঁও এলাকার পঞ্চান্ন বছর বয়সী ইকরামুল সিদ্দিক গত বন্যায় তার ফসল হারিয়েছেন। তবে এখন তিনি বন্যা বা ফসল নিয়ে চিন্তিত নন। নাগরিকত্বের সমস্যাই এখন তাঁকে দুঃস্বপ্নে তাড়া করে চলেছে। ইকরামুল এবং তার ১৬ বছরের ছেলে-সামসুলের নাম গত বছরের ৩১ আগস্ট প্রকাশিত নাগরিকপঞ্জির (এনআরসি) চূড়ান্ত তালিকা থেকে বাদ পড়ে যায়।

    এনআরসি-র চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশের পরে এক বছর কেটে গেছে এবং প্রক্রিয়াটি সেখানেই শেষ হয়ে যাবে বলে মনে হয়েছিল। চূড়ান্ত তালিকায় প্রায় ১৯ লাখ আবেদনকারী বাদ পড়েছেন। যদিও বলা হয়েছিল যে এই ১৯ লাখ লোক বিদেশি ট্রাইব্যুনালগুলিতে (এফটি) তাদের আনুষ্ঠানিক প্রত্যাখ্যান বিজ্ঞপ্তি পাওয়ার পরে তাদের কাছে নাগরিকত্ব প্রমাণের সুযোগ পাবেন। কিন্তু পুরো এক বছর পরেও তাদের এই নোটিশ দেওয়া হয়নি। ফলে নাগরিকত্ব নিয়ে দুশ্চিন্তায় এই লাখো মানুষ।

    এনআরসি কর্তৃপক্ষ কোভিড ১৯-এর চলমান মহামারীর জন্য বিলম্ব হচ্ছে বলে দাবি করেছে। বলা হয়েছে, এনআরসি নবায়ন প্রক্রিয়ার কাজে জড়িত প্রায় সকল কর্মকর্তা এখন কোভিড ১৯ মোকাবিলায় ব্যস্ত রয়েছেন। সূত্রের দাবি, প্রক্রিয়াটি অক্টোবরে নতুন করে শুরু হতে পারে। “আমাদের আর কত কী ভোগ করতে হবে? বন্যা, দারিদ্র্য এবং এখন নাগরিকত্ব। আমি আদালতে আমার ভারতীয় নাগরিকত্বের জন্য লড়াই করার জন্য আইনজীবীদের ফিসের জন্য আমার ছাগল বিক্রি করেছি, কিন্তু এক বছর ধরে কিছুই হয়নি। টাকাটা এখন অন্য কাজে ব্যয় করে ফেলেছি,” কথাটা বলে ফুফিয়ে ওঠলেন সিদ্দিক। তিনি দাবি করেছেন, সমস্ত প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দু’বার জমা দেওয়ার পরেও নামগুলি এনআরসি তালিকায় স্থান পায়নি।

    চূড়ান্ত এনআরসি তালিকা প্রকাশের পরে, এমন অনেক উদাহরণ সামনে এসেছে যেখানে কিছু প্রযুক্তিগত কারণে বেশ কিছু আবেদনকারীদের দাবি প্রত্যাখ্যান করা হয়েছিল। কাটিগড়ার এআইইউডিএফ প্রাক্তন বিধায়ক আতাউর রহমান মাঝারভূইয়া এবং দক্ষিণ অভয়াপুরীর বর্তমান বিধায়ক অনন্ত কুমার মালো সহ তাঁর ছেলের নামও বাদ পড়ে তালিকা থেকে।

    সুপ্রিম কোর্ট এর আগে ১৯৭১ সালের আগে আসামে বসবাসকারী বা পূর্বপুরুষের উপস্থিতি প্রতিষ্ঠা করার যোগ্য হিসাবে আবেদনকারীদের ১৫ টি নথি অনুমোদন করেছিল। ১৯৫১ সালের এনআরসি ছাড়াও, ২ মার্চ, ১৯৭১ পর্যন্ত ভোটার তালিকা, নাগরিকত্বের শংসাপত্র, শরণার্থী নিবন্ধন শংসাপত্র এবং ২৪ শে মার্চ, ১৯৭১ এর আগে জারি করা রেশন কার্ড, অন্যান্য কাগজপত্র যেমন জমির দলিল, রাজ্যের বাইরে থেকে জারি করা স্থায়ী আবাসিক শংসাপত্র, পাসপোর্ট, বীমা নীতিমালা, কোনও সরকারী কর্তৃপক্ষের দ্বারা প্রদত্ত যে কোনও লাইসেন্স বা শংসাপত্র, কোনও দস্তাবেজ যার অধীনে পরিষেবা বা কর্মসংস্থান দেখানো হয়েছে, সরকারি বা সরকারি আন্ডারটেকিংস; ব্যাংক বা ডাকঘর অ্যাকাউন্ট; যোগ্য কর্তৃপক্ষের জারি করা জন্ম সনদ; বোর্ড বা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক জারি করা শিক্ষাগত শংসাপত্র এবং আদালতের সাথে সম্পর্কিত রেকর্ড ইত্যাদি।তবে এনআরসি-তে তালিকাভুক্ত নয় এমন ব্যক্তির জন্য শংসাপত্র সংগ্রহ খুব কঠিন হতে চলেছে। যদি কোনও দাবিদার তার সমর্থনকারী দলিলগুলির একটি কপি না রাখেন, তবে তালিকা থেকে নামটি পরিষ্কার না হওয়া পর্যন্ত কর্তৃপক্ষ কর্তৃক তাকে নতুন করে শংসাপত্র দেওয়া হবে না।

    বরপেটায় এক এফটি আদালতে কর্মরত একজন আইনজীবী বলেছেন, কিছু ক্ষেত্রে আবেদনকারীকে প্রাসঙ্গিক নথি সংগ্রহ করতে আরটিআই-র পথ নিতে হবে, যা সময় সাপেক্ষ হতে পারে। “সমস্ত নথি প্রত্যয়ন করতে হবে। তদুপরি, ইস্যুকারী কর্তৃপক্ষকে সাক্ষ্য দিতে এবং শংসাপত্রটির সত্যতা দেওয়ার জন্য ব্যক্তিগতভাবে আসতে হবে। নিজের দাবিতে সমর্থন করার জন্য সাক্ষী জমায়েত করাও এক বিশাল কাজ, ”আইনজীবী উল্লেখ করেন।

    আসামের এনআরসি-র চূড়ান্ত তালিকায় ১৯ লক্ষাধিক আবেদনকারীর নাম বাদ দেওয়া হয়েছে। মোট ৩.৩০ কোটি আবেদনকারী এনআরসিতে অন্তর্ভুক্ত হওয়ার জন্য আবেদন করেছিলেন। সুপ্রিম কোর্টের আদেশে ও পরিচালিত এই নবায়ন ছিল ১৯৮৫ সালের আসাম চুক্তির একটি আধারে।যা ১৯৭১ সালের ২৪ মার্চকে নাগরিকত্বের ভিত্তি তারিখ হিসাবে বিবেচনা করা হয়। এই তারিখের আগে যারা আসামে বসবাস করছিলেন তারাই রাজ্যের নাগরিক হিসাবে স্বীকৃত।

    তবে দুঃখের বিষয়, যারা অনিশ্চিত ভবিষ্যতের  দিকে চেয়ে আছেন, এনআরসির বাইরে থাকা এমন ব্যক্তিরাই শুধু নন, বিভিন্ন এফটিগুলিতে কাজ করার জন্য নিয়োগপ্রাপ্ত প্রায় ১৬০০ প্রার্থীকেও মাঝপথে ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল। প্রায় এক বছর পরেও তাদের রাজ্য সরকার নিয়োগ দেয়নি।ফলে সেই লোকগুলিরও মাথায় হাত।এনআরসি নবায়ন একসময় আসামের জনগণ অনুপ্রবেশ সমস্যা সমাধানের প্রধান চাবি বলে মনে করেছিলেন, এখন তা নিজেই একটি ‘সমস্যায়’ পরিণত হয়েছে। এনআরসির ভবিষ্যত এবং অবৈধ অনুপ্রবেশ সমস্যার সমাধান আজও স্বপ্নের মতো মনে হচ্ছে।সরকারের এই ব্যর্থতার ফল ভোগ করছেন লাখো লাখো মানুষ।#

    Published:

    Follow TIME8.IN on TWITTER, INSTAGRAM, FACEBOOK and on YOUTUBE to stay in the know with what’s happening in the world around you – in real time

    First published

    ট্ৰেণ্ডিং