20 C
Guwahati
Sunday, November 27, 2022
More

    আজমলের দাবি ব্যক্তিগত, জোটের জট কাটেনি : জিতেন্দ্র সিংহ

    শিলচর, ৮ ডিসেম্বর : বরাকবাসী বিজেপিকে দিয়েছেন ২ জন সাংসদ এবং ৮ জন বিধায়ক। এরপরও ওই দলের সরকার বরাক উপত্যকার প্রতি বৈমাতৃসুলভ আচরণ করে চলেছে। এই অভিমত অসমের দায়িত্বপ্রাপ্ত সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক জিতেন্দ্র সিংহের। সঙ্গে তিনি একথাও স্পষ্ট করে দিয়েছেন, বিটিসি নির্বাচনে একযোগে প্রচার চালানোর মানে এই নয় যে, বিধানসভা নির্বাচনের জন্য জোট হয়ে গেছে কংগ্রেস ও এআইইউডিএফ-এর। তাঁর কথায়, এ নিয়ে বদরুদ্দিন আজমল যা বলছেন, তা উনার ব্যক্তিগত মতামত।দলীয় নেতা-কর্মীদের মতামত জেনে এরপরই জোট নিয়ে সিদ্ধান্ত নেবে কংগ্রেস হাইকমান্ড। অতএব, জোটের জট এখনও কাটেনি।
    বিধানসভার বিরোধী দলপতি দেবব্রত শইকিয়া, সর্বভারতীয় মহিলা কংগ্রেসের সভানেত্রী সুস্মিতা দেব  ও রাজ্যসভা সাংসদ রানি নরহদের সঙ্গে নিয়ে শিলচর সার্কিট হাউসে এক সাংবাদিক সম্মেলনে বক্তব্য রাখতে গিয়ে জিতেন্দ্র সিংহ বলেন, নিজেদের সরকারের সাড়ে চার বছরে বিজেপি বরাক উপত্যকার জন্য একটাও বড় মাপের প্রকল্প তৈরি করতে পারেনি। এ অঞ্চলের বেকারদের রোজগারের ব্যবস্থা করে দেবার জন্য নেই কোনও উদ্যোগ। এসবকে বৈমাতৃসুলভ আচরণ ছাড়া আর কি বলা যায়। কথার সূত্রে তিনি আরও বলেন, কংগ্রেস বরাক উপত্যকায় কাগজ কল, ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ, মেডিক্যাল কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় সহ অনেক কিছুই প্রতিষ্ঠা করেছে। আর বিজেপি ধ্বংসের রাস্তায় নিয়ে গেছে কাগজ কলকে। আসলে এ অঞ্চল থেকে মইনুল হক চৌধুরী, সন্তোষমোহন দেব, দীনেশপ্রসাদ গোয়ালা  ও জগন্নাথ সিংহের মতো কংগ্রেসের অনেকদূর দূরদর্শী নেতা বেরিয়েছেন। যার দরুন কংগ্রেস জমানায় এই অঞ্চলের  প্রভূত উন্নতি ঘটেছে। বিজেপির বেলায় ঘটছে ঠিক উল্টোটা।
    প্রসঙ্গান্তরে গিয়ে  তিনি স্পষ্ট ভাষায় বলেন, অসমে বিধানসভা নির্বাচনকে ঘিরে এআইইউডিএফ  বা অন্য কোনও দলের সঙ্গে জোট নিয়ে এখনও কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি। বিটিসি নির্বাচনে দুই দলের একযোগে প্রচার চালানোর মানেই এটা নয় যে, বিধানসভা নির্বাচনকে ঘিরেও জোট হয়ে গেছে দু’দলের। কথাপ্রসঙ্গে বিধানসভা নির্বাচনে দলের জয়ের সম্ভাবনা নিয়ে তিনি বলেন, কংগ্রেস জনতার হৃদয়ে ঢুকে গেছে। তাই এবার দলের জয় নিশ্চিত। এর সূত্র ধরে শাসক দল বিজেপির সমালোচনা করে বলেন, ওই দল কংগ্রেসের জোট ইস্যুকে সামনে এনে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করতে চাইছে। উদ্দেশ্য নির্বাচনের মুখে ধর্মীয় মেরুকরণ করা। বিজেপির কাছে উন্নয়ন নিয়ে বলার মতো কিছুই নেই। তাই ওই দলের নেতারা কংগ্রেসের জোট ইস্যুকে সামনে এনে বিভ্রান্তি সৃষ্টির খেলায় মেতে উঠেছেন।

    Published:

    Follow TIME8.IN on TWITTER, INSTAGRAM, FACEBOOK and on YOUTUBE to stay in the know with what’s happening in the world around you – in real time

    First published

    ট্ৰেণ্ডিং